www.banglarkontho.net
  • ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

    মানুষের জায়গা দখল করছে কাকতাড়ুয়ারা! ভীতিকর পরিস্থিতি

    ফাইল ছবি
    শেয়ার করুন

    গ্রামের ভিতর প্রবেশ করলে নির্জন পরিবেশ। চাষবাসের জমি থেকে শুরু করে দোকানপাট, বাসস্ট্যান্ড সবই রয়েছে জাপানের এই গ্রামে। চারদিকে ভালো করে লক্ষ করলে লোকজনও দেখা যায়। কিন্তু তাদের কাছে গেলেই অন্য দৃশ্য ধরা পড়ে। এ যে মানুষ নয়, বরং মানুষের পোশাক পরে দাঁড়িয়ে থাকা সারি সারি পুতুল।

    পুতুলে ভরা জাপানের এই গ্রামটির নামও অদ্ভুত। জাপানের ইয়া উপত্যকায় নাগোরো গ্রামের নাম দেয়া হয়েছে স্কেয়ারক্রো গ্রাম। পুতুলগুলো কাকতাড়ুয়ার আকারে তৈরি করা হয়েছে বলেই গ্রামের এমন নাম।

    শিকোকু দ্বীপপুঞ্জের এই গ্রামের একটি জাপানি নামও রয়েছে। স্থানীয়দের কাছে এই গ্রাম কাকাশি নো সাতো নামে পরিচিত।

    এই গ্রামে কাকতাড়ুয়ার সংখ্যা দুই শতাধিক। গ্রামবাসীদের মতো প্রতিটি কাকতাড়ুয়ার নাম, লিঙ্গ, বয়স নির্ধারণ করে রেজিস্ট্রিতে লিখে রাখা আছে।

    এক একটি কাকতাড়ুয়ার দিকে তাকিয়ে থাকলে মনে হয় তারা যেন জীবন্ত। কেউ টেলিফোনের লাইন ঠিক করছে, কেউ আবার বাসের জন্য অপেক্ষা করছে। কোথাও কোথাও আবার কাকতাড়ুয়ার দলকে আড্ডা মারতেও দেখা যায়।

    কিন্তু এই কাকতাড়ুয়াদের জীবদ্দশা তিন বছরের বেশি নয়। তিন বছর পার হয়ে গেলেই তাকে গ্রামের বাইরে সরিয়ে দেয়া হয়। তার জায়গায় চলে আসে অন্য এক কাকতাড়ুয়া।

    তবে জাপানে এমন এক ভুতুড়ে গ্রাম গড়ে ওঠার পেছনে এক নারীর হাত রয়েছে। তার নাম সুকিমি আয়ানো। গ্রামের কাকতাড়ুয়াদের মা হিসেবে তিনি অধিক পরিচিত।

    নাগোরো গ্রামে জন্ম হলেও পড়াশোনা সূত্রে গ্রাম ছেড়ে বাইরে চলে গিয়েছিলেন সুকিমি। ২০০২ সালে আবার ওই গ্রামে ফিরে আসেন তিনি। কিন্তু গ্রামে আসার পর তিনি হতাশ হয়ে পড়েন।

    সুকিমির শৈশব কেটেছিল নাগোরো গ্রামে। পরিবহনের বিশেষ সুযোগ-সুবিধা ছিল না এই গ্রামে। বাস চলাচল করলেও তার সংখ্যা ছিল খুব কম। রেলস্টেশন যেতে হলেও কমপক্ষে এক ঘণ্টা সময় লাগত।

    সিএনএন ট্রাভেলকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সুকিমি জানান, নাগোরো গ্রামে আগে ৩০০ জন গ্রামবাসী থাকতেন। কিন্তু তিনি যখন ফিরে এলেন, তখন গ্রামে মাত্র ২৭ জন ছিলেন।

    এই ২৭ জনের মধ্যে যিনি কনিষ্ঠতম, তার বয়স ৫০ বছর। সুকিমি বলেন, ‘নাগোরো গ্রাম ছেড়ে সকলে বাইরে চলে গিয়েছেন। গ্রামটি যেন ফাঁকা ফাঁকা না লাগে, তাই আমি কাকতাড়ুয়া বানাতে শুরু করি।’

    সুকিমি তার বাবার আদলে প্রথম কাকতাড়ুয়া বানিয়েছিলেন। কাকের উৎপাত থেকে বাঁচার জন্য তা নিজের বাড়ির জমিতে রেখে দেন তিনি।

    কিন্তু সুকিমি লক্ষ করেন যে, জমির সামনে দিয়ে যখন কেউ যেতেন, কাকতাড়ুয়াকে দেখে হাত নাড়াতেন। এই দৃশ্য দেখে সুকিমির মাথায় এক অভিনব পরিকল্পনা আসে। তিনি ভাবেন সমস্ত গ্রামেই তার হাতের তৈরি কাকতাড়ুয়া দিয়ে ভরিয়ে দেবেন।

    যেমন ভাবা, তেমন কাজ। ২০১৩ সালের মধ্যে মোট ৩৫০টি কাকতাড়ুয়া তৈরি করে ফেলেছিলেন সুকিমি। দূর থেকে এই কাকতাড়ুয়াগুলো দেখলে মনে হয় যেন গ্রামবাসীরাই গ্রাম জুড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

    প্রতি বছর অক্টোবর মাসের প্রথম রোববার নাগোরো এলিমেন্টারি স্কুলের কাছে স্কেয়ারক্রো উৎসব হয়।

    সুকিমিকে এই কাকতাড়ুয়াদের মা হিসেবে মানা হয়। প্রতি মাসের চতুর্থ বুধবার সুকিমি ওয়ার্কশপের আয়োজন করে থাকেন। সেরামিকের কাজ থেকে শুরু করে নিজের হাতে কাকতাড়ুয়া বানানো শেখান সুকিমি। কিন্তু ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত এই ওয়ার্কশপ বন্ধ থাকে।

    সূত্র : সিএনএন, আনন্দবাজার পত্রিকা

    • সর্বশেষ

    রাইসির মৃত্যুতে যে প্রতিক্রিয়া জানাল ইরানের মিত্ররা

    মে ২১, ২০২৪ ১;৩২ পূর্বাহ্ণ

    ইরানের অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্টকে পুতিনের ফোন, সম্পর্ক জোরদারের অঙ্গীকার

    ১;৩০ পূর্বাহ্ণ

    রাইসির মৃত্যুতে ভারতে এক দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা

    ১;২৮ পূর্বাহ্ণ

    আইসিসিতে নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আবেদন

    ১;২৭ পূর্বাহ্ণ

    রাইসির হেলিকপ্টারের ধ্বংসাবশেষের ছবি ও ভিডিও প্রকাশ: বিবিসি

    ১;২৫ পূর্বাহ্ণ

    বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় পাওয়া উচিত: মাশরাফি

    ১;২৩ পূর্বাহ্ণ

    রাইসি-সহ হেলিকপ্টারের সব আরোহীর মরদেহ উদ্ধার

    ১;২১ পূর্বাহ্ণ

    নিউইয়র্কে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেখে গাড়ি কিনতে গিয়ে দুবৃর্ত্তের কবলে

    মে ২০, ২০২৪ ২;৫১ অপরাহ্ণ

    পন্ডিত রামকানাই দাশ যুগে যুগে সঙ্গীতের অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবেন। ….নিউইয়র্কে আলোচনা সভায় বক্তারা।

    ১১;৩০ পূর্বাহ্ণ

    পন্ডিত রামকানাই দাশ যুগে যুগে সঙ্গীতের অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবেন। ….নিউইয়র্কে আলোচনা সভায় বক্তারা।

    ১১;০৯ পূর্বাহ্ণ

    রাইসি জীবিত না ফিরলে কে হবেন ইরানের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট?

    ১০;২৯ পূর্বাহ্ণ

    পঞ্চম দফায় আজ ভারতে ৪৯ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে

    ১০;২৬ পূর্বাহ্ণ

    ইতালির ভিসা সেন্টারে বিক্ষোভ হট্টগোল

    ১০;২৩ পূর্বাহ্ণ

    ভোগান্তির নাম ভিএফএস গ্লোবাল

    ১০;১৯ পূর্বাহ্ণ

    শপথ নিলেন তাইওয়ানের নতুন প্রেসিডেন্ট লাই চিং-তে

    ১০;১৫ পূর্বাহ্ণ

    সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টার: রিপোর্ট

    ১০;১৩ পূর্বাহ্ণ

    রাইসি মারা গেলে বিশ্ব নিরাপদ, মার্কিন সিনেটরের এ কেমন মন্তব্য!

    ১০;১০ পূর্বাহ্ণ

    নিউইয়র্ক ইউনিভার্সিটি: যুদ্ধ বিরোধীদের প্রতিশোধ নিচ্ছে

    ২;০১ পূর্বাহ্ণ

    প্রেসিডেন্ট বাইডেনের দু’মুখো নীতি: ইসরাইলে যুদ্ধাস্ত্র আর গাজায় খাদ্য

    ১;৫৭ পূর্বাহ্ণ

    ৩০ ব্যাংকের এমডি নিউইয়র্কে আসছেন

    ১;৫৪ পূর্বাহ্ণ

    Copyright Banglar Kontho ©2024

    Design and developed by Md Sajibul Alom Sajon


    উপরে